যশোরেশ্বরী কালিমন্দীর

বাংলাদেশের বিখ্যাত মন্দিরগুলোর মধ্যে একটি হলো যশোরেশ্বরী কালিমন্দীর। এই মন্দিরটি শক্তিপীট নামেও পরিচিত। শক্তিপীট টি সাতক্ষীরা জেলার শ্যামনগর উপজেলার ঈশ্বরীপুর গ্রামে অবস্থিত। যশোরেশ্বরী নামের অর্থ হলো যশোরের দেবী। সত্য যুগে দক্ষ যঙ্গের পর সতী মাতা দেহ ত্যাগ করেন। এরপর মহাদেব সতীর মৃতদেহ কাধে করে নিয়ে বিশ্বব্যাপী প্রলয় নৃত্য শুরু করেন। মহাদেব প্রলয় নৃত্য শুরু করলে বিষ্ণু দেহ সৃদর্শন চক্র দ্বারা সতীমাতার মৃতদেহ ছেদন করেন। সতীমাতার মৃতদেহ ছেদন করার ফলে সতীমাতার দেহ খন্ড ভারতের বিভিন্ন স্থানে গিয়ে পতিত হয়। সতীমাতার দেহ খন্ড যে সব স্থানে গিয়ে পড়ছে সেই সকল স্থান সমূহ শক্তিপীঠ হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। ধারনা করা হয় যে, আনাড়ি নামের এক ব্রাক্ষন মন্দির টি নির্মান করেন। তিনি এই মন্দির টির ১০০ টি দরজা নির্মান করেন। কিন্তু মন্দির টি কবে এবং কখন নির্মিত হয় তার কোন সঠিক তথ্য জানা যায় নি। পরবর্তীতে লক্ষন সেন ও প্রতাপাদিত্যর রাজত্বকালে এই মন্দিরটির সংস্কার করা হয়। কথায় আছে যে, মহুয়ার রাজা প্রতাপাদিত্য এর রাজত্বকালে তার সেনাপতি এখানের জঙ্গল থেকে একটি অলৌকিক আলোর রেখা বের হতে দেখেন এবং সেটি মানুষের হাতের তালুর আকারের একটি পাথর খন্ডের উপরে পড়তে দেখেন। এরপর থেকে এখানে রাজা প্রতাপাদিত্য কালিপূজা শুরু করেন এবং তিনিই এই কালিমন্দির টি নির্মান করেন।  

About oursatkhira

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *